কুষ্টিয়ায় ত্রিপল মার্ডার: মুখ খুললেন এএসআই » Sheersha Khobor

কুষ্টিয়ায় ত্রিপল মার্ডার: মুখ খুললেন এএসআই

রবিবার, ১৩ জুন ২০২১
শীর্ষখবর

  •  
  •  
  •  

সাবেক স্ত্রী-ছেলেসহ তিনজনকে প্রকাশ্যে গুলি করে হত্যা করেছেন পুলিশের উপ- সহকারী পরিদর্শক (এএসআই) সৌমেন। এ ঘটনায় কুষ্টিয়া শহর জুড়ে শুরু হয়েছে চাঞ্চল্য।

রবিবার (১৩ জুন) দুপুর পৌনে ১২টার দিকে কুষ্টিয়া শহরের কাস্টমস মোড় এলাকায় নাজ ম্যানশন মার্কেটের একটি বিশাল দোকানের সামনে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার পর ঘাতক পুলিশ সদস্য সৌমেনকে আটক করে বিক্ষুব্ধ জনতা।

নিহতরা হলেন- সৌমেনের সাবেক স্ত্রী আসমা আক্তার, তার সাত বছরের ছেলে রবিন ও কথিত পরকীয়া প্রেমিক শাকিল। তাদের সবার বাড়ি কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার সাওতা গ্রামে। শাকিল একজন বিকাশকর্মী ছিলেন।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সৌমেন জানান, আসমা তার দ্বিতীয় স্ত্রী। তার প্রথম স্ত্রী এবং সন্তান অন্যত্র থাকেন। কেন এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছেন- জবাবে সৌমেন জানান, বিকাশকর্মী শাকিলের সঙ্গে আসমার অনৈতিক সম্পর্কের কারণে তিনি এ ঘটনা ঘটিয়েছেন। তবে আসমাকে নিজের স্ত্রী দাবি করলেও কোনো কাগজপত্র দেখাতে পারেননি সৌমেন। গুলিতে নিহত শিশুটি আসমার প্রথম ঘরের সন্তান।

জানা গেছে, আসমার প্রথম স্বামীর সঙ্গে বছর দেড়েক আগে ডির্ভোস হয়। এরপর ছেলেকে নিয়ে কুষ্টিয়া শহরে মায়ের সঙ্গে থাকতেন তিনি। এ সময় কুষ্টিয়ার হালশা ক্যাম্পে দায়িত্বে ছিলেন সৌমেন। ওই সময় তার বিরুদ্ধে নানা অনৈতিক কর্মকাণ্ডের অভিযোগ ওঠে।

হালশায় থাকা অবস্থায় আসমার সঙ্গে সৌমেনের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। তবে দুজন দুই ধর্মের হওয়ায় তাদের বিয়ে হয়েছে কিনা তা কেউ নিশ্চিত করে বলতে পারেননি। নানা অভিযোগের কারণে সৌমেনকে হালশা থেকে খুলনার ফুলতলায় বদলি করা হয়। এরপর শাকিলের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে ওঠে আসমার।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, নাজ ম্যানশন মার্কেটে বিকাশের দোকানে বিকাশকর্মী ছেলে বন্ধু শাকিলের সঙ্গে দেখা করতে আসেন আসমা। এ সময় আসমার সঙ্গে তার ছেলে রবিনও ছিল। হঠাৎ সেখানে হাজির হন আসমার সাবেক স্বামী এএসআই সৌমেন। মার্কেটের ভেতরে প্রথমেই শাকিল ও আসমার মাথায় গুলি চালান তিনি। এ সময় রক্ত দেখে দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করে রবিন। কিন্তু তাকেও ছাড়েননি সৌমেন। তেড়ে ধরে তার মাথায়ও গুলি চালান।

এসব দৃশ্য দেখে ইট-পাটকেল ছুড়ে সৌমেনকে থামানোর চেষ্টা করেন উপস্থিত লোকজন। খবর পেয়ে পুলিশও ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। একপর্যায়ে ধরা দেন সৌমেন। পরে স্থানীয়রা তিনজনকে উদ্ধার করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে নিলে চিকৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

শীর্ষ খবর/আ/আ

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Facebook Page

Sheersha Khobor UK

বিজ্ঞাপন

একটি ভোরের প্রতীক্ষায়

Hameem Travel

add-1