তসলিমার প্রশ্ন, নিখিল আর নুসরাতের ডিভোর্স হয়ে যাওয়াই কি ভালো নয়? » Sheersha Khobor

তসলিমার প্রশ্ন, নিখিল আর নুসরাতের ডিভোর্স হয়ে যাওয়াই কি ভালো নয়?

রবিবার, ৬ জুন ২০২১
শীর্ষখবর

  •  
  •  
  •  

টলিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রী এবং লোকসভার সদস্য নুসরাত জাহানের মা হওয়া নিয়ে তোলপাড় চলছে। সম্প্রতি জানা যাচ্ছে, নুসরাত মা হতে চলেছেন। কিন্তু কে এ অনাগত সন্তানের বাবা? স্বামী নিখিল জৈন নাকি প্রেমিক যশ দাশগুপ্ত এ নিয়ে দ্বিধান্বিত গোটা টলিউড। তাছাড়া নিখিলের সঙ্গে নুসরতের আইনি বিচ্ছেদ এখনো না হওয়াতে এবং ‘এই সন্তান তার নয়’ বলে নিখিল দাবি করাতে উক্ত প্রশ্নটা নিতান্ত অমূলক নয় বলেই মনে করছেন অনেকে।

এমতাবস্থায় যশ-নুসরাত-নিখিল এই ত্রিকোণ সম্পর্ক নিয়ে মন্তব্য করেছেন লেখিকা তসলিমা নাসরিন। ফেসবুকে এ নিয়ে দীর্ঘ পোস্ট করেছেন তিনিঃ

নুসরতের খবর বেশ চোখে পড়ছে। তিনি প্রেগনেন্ট। তাঁর স্বামী নিখিল এ ব্যাপারে কিছু জানেন না। দুজন আলাদা থাকছেন ৬ মাস হলো।
তবে যশ নামে এক অভিনেতার সঙ্গে অভিনেত্রী নুসরাত প্রেম করছেন। সন্তানের পিতা, মানুষ অনুমান করছে, যশ; নিখিল নয়। খবরটি খবর না গুজব জানিনা। তবে এই যদি পরিস্থিতি হয়, তবে নিখিল আর নুসরাতের ডিভোর্স হয়ে যাওয়াই কি ভালো নয়? অচল কোনো সম্পর্ক বাদুড়ের মতো ঝুলিয়ে রাখার কোনো মানে হয় না। এতে দু’পক্ষেরই অস্বস্তি।

যখন নুসরাত আর নিখিল বিয়ে করলেন, বেশ আনন্দ পেয়েছিলাম। ঠিক যেমন আনন্দ পেয়েছিলাম সৃজিত আর মিথিলা যখন বিয়ে করেছিলেন। অসাম্প্রদায়িকতায় বিশ্বাস করি বলে দুই ধর্মের মানুষের মধ্যে বিয়ে হলে খুব স্বাভাবিক কারণেই পুলকিত হই। জাত ধর্ম ইত্যাদি দূর করতে হলে ভিন্ন জাত আর ভিন্ন ধর্মের মানুষকে আত্মীয়তার বন্ধনে আবদ্ধ হতে হবে। এতেই হিংসে আর হানাহানিকে হটানো যাবে। কিন্তু এত চোখ জুড়োনো জুটি যে বেশিদিন সুখে থাকবে না কে জানতো!

সেদিন ব্রাত্যর একটি ছবিতে নুসরাতকে দেখলাম। ওটিই নুসরাতের প্রথম কোনো ছবি আমার দেখা। মেয়েটি অনেকটা অ্যানজেলিনা জোলির মতো দেখতে, অভিনয়ও করে বেশ চমৎকার। নিশ্চয়ই মেয়েটি স্বনির্ভর। আসলে স্বনির্ভর এবং সচেতন হলে, আত্মবিশ্বাস এবং আত্মসম্মান যথেষ্ট থাকলে নিজের সন্তানের অভিভাবক নিজেই হওয়া যায়। নিজের সন্তানকে নিজের পরিচয়েই বড় করা যায়। পুরুষের মুখাপেক্ষী হতে হয় না। আসলে নিখিল এবং যশের মধ্যে কী এমন আর পার্থক্য! পুরুষ তো শেষ পর্যন্ত পুরুষই। এক জনকে ত্যাগ করে আরেক জনকে বিয়ে করলে খুব যে সুখময় হয়ে ওঠে জীবন তা তো নয়। দ্বিতীয় বিষময় জীবন থেকে বাঁচতে তাহলে কি আবার আরেকটি বিয়ে করতে হবে? তাহলে এ রেসের শেষ হবে না, কাঙ্ক্ষিত পুরুষের দেখাও মিলবে না। স্বাধীনচেতা নারীর কাঙ্ক্ষিত পুরুষ কল্পনায় থাকে, বাস্তবে নয়।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশি লেখিকা তসলিমা নাসরিন ১৯৯৪ সাল থেকে ভারতে স্বেচ্ছা-নির্বাসনে আছেন।
গত মাসের শুরুতে এই লেখিকা জানিয়েছিলেন, তিনি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

শীর্ষ খবর/আ/আ

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Facebook Page

Sheersha Khobor UK

বিজ্ঞাপন

একটি ভোরের প্রতীক্ষায়

Hameem Travel

add-1